রাষ্ট্রবিজ্ঞান কাকে বলে ?

QuestionsCategory: Political Scienceরাষ্ট্রবিজ্ঞান কাকে বলে ?
GFL eSTUDY Staff asked 3 months ago
1 Answers
GFL eSTUDY Staff answered 3 months ago

রাষ্ট্রবিজ্ঞান কাকে বলে ?

উত্তর : রাষ্ট্রবিজ্ঞানের সংজ্ঞা ও ধারণা তার আলােচনা ক্ষেত্রের পরিধির দ্বারাই নির্ধারিত হয়। অন্যান্য সামাজিক বিজ্ঞানের ন্যায় রাষ্ট্রবিজ্ঞানও হল গতিশীল বিজ্ঞান। মানুষের সমাজ ও সভ্যতার ক্রমবিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের আলােচনার পরিধিও পরিমার্জিত এবং পরিবর্তিত হয়েছে। তার ফলে রাষ্ট্রবিজ্ঞান সম্বন্ধে ধারণারও বিবর্তন ঘটেছে। এই কারণে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের বিভিন্ন সংজ্ঞার সৃষ্টি হয়েছে।
রাষ্ট্রবিজ্ঞানের সংজ্ঞা :- রাষ্ট্রবিজ্ঞানের সংজ্ঞা দেওয়া সহজ নয়। কারণ, ওয়াসবি (Washby) বলেছেন—রাষ্ট্রবিজ্ঞান। সম্পর্কে এত বেশি মতপার্থক্য আছে এবং এই বিষয়টি এতই পরিবর্তনশীল যে, এর একটি নির্দিষ্ট সংজ্ঞা দেওয়া সম্ভব নয়।
   সাধারণ অর্থে বিজ্ঞান বলতে বােঝায়, বিশেষ জ্ঞান। সুতরাং যে শাস্ত্র পাঠ করলে রাষ্ট্র সম্পর্কে বিশেষ জ্ঞান পাওয়া যায়, তাকে বলা হয় রাষ্ট্রবিজ্ঞান। অর্থাৎ রাষ্ট্রবিজ্ঞানের আলােচনার মূল বিষয়বস্তু হল রাষ্ট্র। রাষ্ট্র সম্পর্কে আলােচনা বলতে বােঝায়—রাষ্ট্রের উৎপত্তি, গতি এবং প্রকৃতি বিষয়ে আলােচনা। সেদিক থেকে বলা যায়, যে শাস্ত্রের মূল বিষয়বস্তু হল রাষ্ট্র—তারই নাম রাষ্ট্রবিজ্ঞান। অধ্যাপক গার্নারের (Garner) ভাষায়, “Political Science begins and ends toith the State,” অর্থাৎ রাষ্ট্রবিজ্ঞান রাষ্ট্রকে নিয়ে আলােচনা শুরু এবং শেষ করে।
   কিন্তু রাষ্ট্রবিজ্ঞান শুধু রাষ্ট্রকে নিয়ে আলােচনা করে না, সরকার নিয়েও আলােচনা করে। কারণ, রাষ্ট্রের ইচ্ছা সরকারের মাধ্যমে প্রতিফলিত হয়। তাই গিলক্রাইস্ট (Gilchrist) বলেছেন, “Political Science deals with the State and Government,” অর্থাৎ যে শাস্ত্র রাষ্ট্র ও সরকার নিয়ে আলােচনা করে তাকে বলে রাষ্ট্রবিজ্ঞান। অধ্যাপক গেটেল (Gettell) বলেছেন—বর্তমানে বিশ্ব রাজনীতিতে আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। তাই এই প্রতিষ্ঠানের আলােচনা রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। সেদিক থেকে বলা যায়, যে শাস্ত্র রাষ্ট্র, সরকার এবং আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান নিয়ে আলােচনা করে, তাকে বলা হয় রাষ্ট্রবিজ্ঞান।
   কিন্তু আধুনিক রাষ্ট্রবিজ্ঞানীগণ এইসব সংজ্ঞা অসম্পূর্ণ বলে মনে করেন। এঁদের মধ্যে উল্লেখযােগ্য হলেন, অ্যালান বল (Alan Ball), ডেভিড ইস্টন (David Eastan) প্রমুখ। এদের বক্তব্য হল— রাষ্ট্রবিজ্ঞান শুধুমাত্র রাষ্ট্র ও সরকার নিয়ে আলােচনা করে না। সমাজের মধ্যে নানারকম বিরােধ ও সংঘাত আছে। তার মীমাংসার চেষ্টাকে বলে রাজনৈতিক কার্যকলাপ। আবার রাজনৈতিক কার্যকলাপ ও ক্ষমতা এবং ব্যক্তিগত ও গােষ্ঠীগত রাজনৈতিক আচার-আচরণ রাষ্ট্রবিজ্ঞানের বিষয়বস্তু। সুতরাং বলা যায়—যে শাস্ত্র রাষ্ট্র, সরকার, আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক কার্যকলাপ, ক্ষমতা, ব্যক্তিগত ও গােষ্ঠীগত আচার-আচরণ প্রভৃতি আলােচনা করে, তাকে বলা হয় রাষ্ট্রবিজ্ঞান।

Your Answer