ভারতের রাষ্ট্রপতি (President of India)

ভারতের রাষ্ট্রপতি (President of India)

1. রাষ্ট্রপতি কিভাবে নির্বাচিত হন?
Ans. ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রত্যক্ষভাবে জনগণের দ্বারা নির্বাচিত হন না। সংবিধানের ৫৪নং অনুচ্ছেদ অনুসারে তিনি একটি নির্বাচকমন্ডলী দ্বারা পরােক্ষভাবে নির্বাচিত হন। কেন্দ্রীয় আইনসভা বা পার্লামেন্টের উভয় কক্ষের অর্থাৎ, লােকসভা ও রাজ্যসভার নির্বাচিত সদস্যগণ এবং রাজ্যগুলির বিধানসভাসমূহের নির্বাচিত সদস্যগণ দ্বারা এই নির্বাচকমন্ডলী গঠিত হয়।

2. রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থীকে কি কি যােগ্যতাসম্পন্ন হতে হয়?
Ans. রাষ্ট্রপতির পদপ্রার্থীকে নিম্নলিখিত যােগ্যতাসম্পন্ন হতে হয় :(a) ভারতীয় নাগরিক হতে হবে, (b) বয়স হবে অন্যূন ৩৫ বছর, (c) লােকসভার সদস্য হওয়ার যােগ্যতাসম্পন্ন হতে হবে, (d) কেন্দ্রীয় বা কোনাে রাজ্য আইনসভার সদস্য থাকা চলবে না, (e) রাষ্ট্রাধীন কোনাে লাভজনক পদে (Office of profit) অধিষ্ঠিত থাকা চলবে না।

3. রাষ্ট্রপতির ক্ষমতাগুলির নাম উল্লেখ কর।
Ans. রাষ্ট্রপতির ক্ষমতাকে মােটামুটি পাঁচটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে।(a) শাসনসংক্রান্ত ক্ষমতা, (b) আইনসংক্রান্ত ক্ষমতা, (c) অর্থসংক্রান্ত ক্ষমতা, (d) জরুরী অবস্থাসংক্রান্ত ক্ষমতা এবং (e) বিচারবিষয়ক ক্ষমতা।

4. সংবিধান রাষ্ট্রপতিকে কতপ্রকার জরুরী অবস্থা ঘােষণার ক্ষমতা দিয়েছে?
Ans. সংবিধান রাষ্ট্রপতিকে তিন প্রকার জরুরী অবস্থা ঘােষণার ক্ষমতা দিয়েছে। এই তিন প্রকার জরুরী অবস্থা হল : (a) জরুরী অবস্থার ঘােষণা (Proclamation of Emergency), (b) অঙ্গরাজ্যে শাসনতান্ত্রিকঅচলাবস্থা ঘােষণা (Proclamation in case of failure of Constitutional Machinery in a State) এবং (c) আর্থিক জরুরী অবস্থার ঘােষণা (Proclamation of Financial Emergency)।

5. রাষ্ট্রপতি কোন্ কোন্ সদস্যকে অপসারণ করতে পারেন?
Ans. রাষ্ট্রপতি এককভাবে মন্ত্রীসভার সদস্য, রাজ্যপাল, অ্যাটর্নী জেনারেল, কেন্দ্রের ও রাজ্যের পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সভাপতি ও সদস্যদের অপসারণ করতে পারেন।

6. ভারতের রাষ্ট্রপতির ‘ভেটো ক্ষমতা’ বলতে কি বােঝায়?
Ans. রাষ্ট্রপ্রধানের বিল বাতিল করার ক্ষমতাকে ‘ভেটো ক্ষমতা’ (Veto-Power) বলে। ভারতের রাষ্ট্রপতির ভেটো ক্ষমতার মধ্যে তিন ধরনের ভেটো ক্ষমতা আছে। এগুলি হল : পূর্ণাঙ্গ ভেটো (absolute veto), স্থগিতকারী ভেটো (suspensive veto) এবং পকেট ডেটো (pocket veto)।

7. ‘পূর্ণাঙ্গ ভেটো’ বলতে কি বােঝ?
Ans. অর্থ বিল ও সংবিধান সংশােধনী বিলের কথা বাদ দিলে পার্লামেন্টে পাস হওয়া যে-কোনো বিলে রাষ্ট্রপতি অসম্মতি জানাতে পারেন। রাষ্ট্রপতি অসম্মতি জানালে বিলটি বাতিল হয়ে যাবে। রাষ্ট্রপতির এই ক্ষমতাকে পূর্ণাঙ্গ ভেটো ক্ষমতা বলে।

৪. ‘স্থগিতকারী ভেটো’ বলতে কী বােঝ?
Ans. সংসদে পাস হওয়া কোনাে বিল অনুমোদনের জন্য তার কাছে এলে তিনি সরাসরি সম্মতি না জানিয়ে বা অসতি জ্ঞাপন করে বিলটিকে পুনর্বিবেচনার জন্য সংসদে ফেরৎ পাঠাতে পারেন। রাষ্ট্রপতির এই ভেটোকে স্থগিতকারী ভেটো বলে। এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট বিলটি সংখ্যাগরিষ্ঠের ভােটে পাস হয়ে আবার রাষ্ট্রপতির কাছে আসে, তখন কিন্তু রাষ্ট্রপতি বিলটিতে সম্মতিজ্ঞাপন করতে বাধ্য।

9. ‘পকেট ভেটো’ বলতে কী বােঝায়?
Ans. সংসদে কোনাে বিল গৃহীত হবার পর রাষ্ট্রপতির কাছে আসে। বিলে সম্মতি বা অসম্মতি জ্ঞাপন বা বিলটিকে পুনর্বিবেচনার জন্য পার্লামেন্টে ফেরৎ পাঠানাের ব্যাপারে সংবিধানে কোনাে সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়নি। সুতরাং, রাষ্ট্রপতি কোনাে বিলে সম্মতি বা অসম্মতি জ্ঞাপন না করে বা সংসদে ফেরৎ না পাঠিয়ে বিলটিকে অনির্দিষ্টকাল চেপে রাখতে পারেন। রাষ্ট্রপতির এই ক্ষমতাকে পকেট ভেটো বলে।

10. রাষ্ট্রপতি কোন্ কোন্ ব্যক্তিদের নিয়ােগ করেন?
Ans. (a) অঙ্গরাজ্যের রাজ্যপালগণ, (b) ভারতের প্রধানমন্ত্রী ও অন্যান্য মন্ত্রীগণ, (c) ভারতের অ্যাটর্নী জেনারেল, (d) ভারতের কম্পট্রোলার ও অডিটর জেনারেল, (e) সুপ্রীমকোর্ট ও হাইকোর্টের বিচারকগণ, (f) অর্থকমিশনের সদস্যগণ, (g) ইউনিয়ন পাবলিক সার্ভিস কমিশন ও যুগ্ম মিশনের সদস্যগণ, (h) ভারতের নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য সদস্যগণ, (i) আন্তঃরাজ্য পরিষদের সদস্যগণ, ভাষা কমিশনের সদস্যগণ প্রভৃতি ব্যক্তিদের রাষ্ট্রপতি নিয়ােগ করে থাকেন।

11. রাষ্ট্রপতিকে কি কি শপথ গ্রহণ করতে হয়?
Ans. রাষ্ট্রপতিকে প্রবীণতম বিচারপতির সামনে ঈশ্বরের নামে শপথ করতে হয় অথবা, সত্যনিষ্ঠার সাথে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হতে হয় যে,(১) তিনি বিশ্বস্ততার সাথে রাষ্ট্রপতির কাজ সম্পাদন করবেন। (২) যথাসাধ্য সংবিধান ও আইন পরীক্ষণ, সংরক্ষণ এবং প্রতিরক্ষণ করবেন, (৩) নিজেকে ভারতের জনগণের সেবা ও কল্যাণে নিয়ােজিত করবেন।

12. ভারতীয় রাষ্ট্রপতির সাংবিধানিক পদমর্যাদাটি ব্যাখ্যা কর।
Ans. ভারতীয় সংবিধানে রাষ্ট্রপতির প্রকৃত ক্ষমতা ও পদমর্যাদা সম্পর্কে বিস্তারিত ব্যাখ্যা দেওয়া হয়নি। তবে সংবিধানে তাকে সামগ্রিক বিচারে বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাপক ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু রাষ্ট্রপতিকার্যক্ষেত্রে এই ক্ষমতা কতদূর প্রয়ােগ করতে পারেন সে বিষয়ে সংশয় আছে এবং এর উপরই রাষ্ট্রপতির প্রকৃত ক্ষমতা ও পদমর্যাদা নির্ভরশীল। উল্লেখ্য যে, প্রথম রাষ্ট্রপতি রাজেন্দ্র প্রসাদ রাষ্ট্রপতির পদটিকে নিয়মতান্ত্রিক শাসকের পদ হিসাবে মেনে নিতে রাজি হননি।

13. রাষ্ট্রপতির বিচারবিষয়ক ক্ষমতাটি লেখাে।
Ans. রাষ্ট্রপতির কিছু বিচারবিভাগীয় ক্ষমতাও আছে। তিনি সুপ্রীম কোর্ট ও হাইকোর্টের বিচারপতিদের নিযুক্ত করেন। পার্লামেন্টের সুপারিশক্রমে তিনি তাদের পদচ্যুতও করতে পারেন। ফৌজদারী মামলায় দণ্ডিত ব্যক্তির দণ্ডাদেশ রাষ্ট্রপতি স্থগিত রাখতে পারেন, হ্রাস করতে পারেন, আবার দণ্ডিত ব্যক্তিকে ক্ষমা প্রদর্শন করতে পারেন।

14. রাষ্ট্রপতির শাসনসংক্রান্ত ক্ষমতাটি লেখাে।
Ans. সংবিধান অনুসারে রাষ্ট্রপতি শাসনবিভাগের প্রধান হিসাবে শাসনসংক্রান্ত সমস্ত ক্ষমতা ভােগ করেন। রাষ্ট্রপতি প্রত্যক্ষভাবে অথবা তার অধীনস্থ কর্মচারীদের মাধ্যমে সংবিধান অনুসারে এইসব ক্ষমতা ভােগ করেন। তিনি দেশশাসন সম্পর্কে যে সংবাদ জানতে চাইবেন তা প্রধানমন্ত্রী জানাতে বাধ্য। আর তিনি কোনাে বিষয় জানতে না চাইলেও প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতিকে মন্ত্রীপরিষদের সিদ্ধান্ত সম্পর্কে সব সংবাদ জানাবেন।

15. আইনসংক্রান্ত ব্যাপারে রাষ্ট্রপতির ভূমিকা কী ?
Ans. ব্রিটেনের রাজা বা রাণীর মতাে ভারতের রাষ্ট্রপতি পার্লামেন্টের অবিচ্ছেদ্য অংশ। তিনি পার্লামেন্টের অধিবেশন আহ্বান করতে পারেন, পার্লামেন্টের উভয় কক্ষ অথবা যে-কোনাে কক্ষের অধিবেশনের অবসান করতে পারেন, উভয় কক্ষের অধিবেশন মুলতুবি রাখতে পারেন এবং লােকসভাকে ভেঙে দিতে পারেন। তিনি পার্লামেন্টের যে-কোনাে কক্ষে অথবা মিলিতভাবে উভয় কক্ষে বক্তৃতা দিতে পারেন।

16. রাষ্ট্রপতির অর্থ সংক্রান্ত ক্ষমতাটি ব্যাখ্যা করাে।
Ans. রাষ্ট্রপতির অনুমােদন ব্যতীত পার্লামেন্টে কোনাে ব্যয় মঞ্জুরীর দাবী পেশ করা যায় না। সংবিধান অনুসারে রাষ্ট্রপতি প্রতি আর্থিক বছরের প্রারম্ভে সেই বছরের জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের আনুমানিক আয় ব্যয়ের একটি বিবরণী বা বাজেট’ মন্ত্রী মারফৎ পার্লামেন্টের উভয় কক্ষে উপস্থাপিত করান। রাষ্ট্রপতির সুপারিশ ছাড়া পার্লামেন্টে কর ও ঋণসংক্রান্ত বিল উত্থাপন করা যায় না।

17. রাষ্ট্রপতির জরুরী অবস্থা সংক্রান্ত ক্ষমতাটি লেখাে।
Ans. রাষ্ট্রপতির বিভিন্ন ক্ষমতার মধ্যে জরুরী অবস্থা সংক্রান্ত ক্ষমতাটি অন্যতম। সংবিধান রাষ্ট্রপতিকে অস্থায়ী জরুরী আইন বা অর্ডিন্যান্স (Ordinance) জারী করার ক্ষমতা দিয়েছে। যখন পার্লামেন্টেরঅধিবেশন থাকে না সেই সময় যদি রাষ্ট্রপতি মনে করেন তাঁর অবিলম্বে কোনাে ব্যবস্থা অবলম্বন করা প্রয়ােজন তাহলে তিনি অর্ডিন্যান্স জারী করতে পারেন এবং তা পার্লামেন্ট প্রণীত আইনের মতাে কার্যকর হয়।

18. রাষ্ট্রপতির সামরিক ক্ষমতাটি লেখাে।
Ans. রাষ্ট্রপতির সামরিক ক্ষমতাও আছে। তিনি স্থল, নৌ ও বিমান দেশের এই তিনটি রক্ষীবাহিনীর সর্বাধিনায়ক। কিন্তু রাষ্ট্রপতির এই ক্ষমতা পার্লামেন্টের দ্বারা প্রণীত আইন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হবে। সংবিধান অনুসারে একমাত্র পার্লামেন্টই রক্ষীবাহিনী এবং যুদ্ধ ও শান্তি সম্পর্কিত বিষয়ে আইন প্রণয়নের অনন্য ক্ষমতার অধিকারী।

19. ক্ষমা প্রদর্শনের ক্ষমতায় রাষ্ট্রপতির ভূমিকাটি লেখো।
Ans. ক্ষমাপ্রদর্শনের ক্ষমতায় রাষ্ট্রপতির ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তিনি অপরাধের জন্য দণ্ডিত ব্যক্তিকে ক্ষমা প্রদর্শন করতে পারেন, অথবা তার দণ্ডাদেশ হ্রাস করতে পারেন অথবা, তার দণ্ডাদেশ স্থগিত রাখতে পারেন। যে ক্ষেত্রে সামরিক আদালত দণ্ড বা দণ্ডাদেশ দিয়েছে এবং যে ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকারের অধিকারভুক্ত আইন লঙ্ঘন করার অপরাধে দণ্ড বা দণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে সেই সব ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতি এই ক্ষমতা প্রয়ােগ করতে পারেন। এমনকি মৃত্যুদণ্ডাজ্ঞাপ্রাপ্ত অপরাধীকে রাষ্ট্রপতি ক্ষমা করতে অথবা হ্রাস করার আদেশ দিতে পারেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × 1 =