পশ্চিমবঙ্গে পৌর প্রশাসন (Municipal Administration In West Bengal)

পশ্চিমবঙ্গে পৌর প্রশাসন
(MUNICIPAL ADMINISTRATION
IN WEST BENGAL)

পশ্চিমবঙ্গে পৌর প্রশাসন
(MUNICIPAL ADMINISTRATION IN WEST BENGAL)1, কলিকাতা মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন কিভাবে গঠিত (composed) হয় ?উত্তর: ১৯৯৪ খ্রিস্টাব্দের কলিকাতা মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন (সংশােধনী) আইন অনুসারে কলিকাতা কর্পোরেশন গঠিত হয় ১৪১ জন নির্বাচিত কাউন্সিলরকে নিয়ে। এছাড়া রাজ্যসরকার বিভিন্ন সময়ে মিউনিসিপ্যাল প্রশাসনে বিশেষজ্ঞ ও অভিজ্ঞ ব্যক্তিদের ভেতর থেকে প্রয়ােজন মতাে কিছু ব্যক্তিকে মনােনীত করতে পারবেন। তবে এই সমস্ত মনােনীত সদস্যরা করপােরেশনের সভায় ভােট দিতে পারবেন না। 2. কলিকাতা কর্পোরেশনের সপরিষদ মেয়র (Mayor-in Council) কিভাবে গঠিত হয় ?উত্তর। কলিকাতা কর্পোরেশনের প্রধান প্রশাসনিক সংস্থা হল – পরিষদ মেয়র (Mayor-in Council)। মেয়র, ডেপুটি মেয়র ও অনধিক ১০ জন কাউন্সিলরকে নিয়ে এই পরিষদ গঠিত হয়। অর্থাৎ,সর্বাধিক ১২জন সদস্যকে নিয়ে সপরিষদ মেয়র গঠিত হয়। কাউন্সিলরগণ নিজেদের মধ্য থেকে মেয়রকে নির্বাচিত করেন। নবনির্বাচিত কাউন্সিলরদের প্রথম সভায় মেয়র নির্বাচিত হন। মেয়র, ডেপুটি মেয়র ও পরিষদের অন্যান্য সদস্যদের নিযুক্ত করেন। 3. কলিকাতা কর্পোরেশনের আবশ্যিক কার্যগুলি (Obligatory functions) কি কি?উত্তর: কলিকাতার নাগরিকদের যাবতীয় সুযােগ-সুবিধার দায়িত্ব কর্পোরেশনের । নতুন আইন অনুসারে পরিসুত ও অপরিসুত জল সরবরাহ, ময়লা নিষ্কাশন, ভূগর্ভস্থ নালা পরিষ্কার, মহামারী প্রতিরােধ, দাতব্য চিকিৎসালয় প্রতিষ্ঠা, জন্মমৃত্যুর হিসাব রক্ষা, গােরস্থান ও শ্মশানঘাট স্থাপন ও নিয়ন্ত্রণ, রাস্তাঘাট আলােকিত করা, রাস্তার ধারে বৃক্ষরােপণ, রাস্তার নামকরণ, বিপজ্জনক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ, জন্মমৃত্যু রেজিস্ট্রেশন, পার্ক উদ্যান গঠন ও সংরক্ষণ, পাতাল রেলপথের কার্যাদির সমন্বয়সাধন প্রভৃতি করপােরেশনের আবশ্যিক কাজ। 4. কলিকাতা কর্পোরেশনের ঐচ্ছিক কাজগুলি (Discretionary Functions) কি কি?উত্তর: কর্পোরেশনের কিছু ঐচ্ছিক কার্যাবলীও আছে। শিক্ষা বিস্তারের উদ্দেশ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন ও পরিচালনা ; পাঠাগার স্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণ, মিউজিয়াম প্রভৃতিকে সাহায্য দান প্রভৃতি কর্পোরেশনের স্বেচ্ছামূলক কার্যাবলীর অন্তর্ভুক্ত। অন্যান্য ঐচ্ছিক কার্যাবলীর মধ্যে উল্লেখযােগ্য হল হাসপাতাল, ডিসপেনসারী, বিশ্রামাগার, দরিদ্রদের জন্য ও অনাথ শিশুদের জন্য আশ্রয়স্থান, কর্মচারীদের জন্য আবাসস্থান, গুদামঘর প্রভৃতি নির্মাণ ও সংরক্ষণ। 5. কলিকাতা কর্পোরেশনের আয়ের উৎসগুলি (Sources of Income) কি কি ?উত্তর: কর্পোরেশনের আয়ের উৎস অত্যন্ত সীমিত। জমি ও বাড়ির উপর করই হল আয়ের প্রধান উৎস। এর থেকেই মােট আয়ের অর্ধেকের বেশি আসে। অন্যান্য উৎসের মধ্যে ব্যবসা, বৃত্তি ও পেশার উপর কর, যানবাহন ও পশুর উপর ধার্য কর ; বিজ্ঞাপনের উপর লাইসেন্স ফী, বাজার থেকে আয়, চুঙ্গীকর প্রভৃতি উল্লেখযােগ্য। রাজ্যসরকার কর্পোরেশনকে মহার্ঘভাতার জন্য অর্থ সাহায্য দেয়। তাছাড়া, রাজ্যসরকার সাধারণভাবে বিশেষ খাতে অর্থ সাহায্য দেয়। 6. রাজ্য সরকার কিভাবে কলিকাতা কর্পোরেশনকে নিয়ন্ত্রণ (Control) করে থাকে?উত্তর: কর্পোরেশনের উপর রাজ্য সরকারের নিয়ন্ত্রণগুলি হল— (a) রাজ্যসরকার কর্পোরেশনের কাছে যে-কোনাে বিষয়ে নথিপত্র, দলিল-দস্তাবেজ, তথ্যাদি প্রভৃতি তলব করতে পারে। এছাড়া কোনাে পরিকল্পনা, আনুমানিক ব্যয়, হিসাবপত্র প্রভৃতি বিষয়ে রিপাের্ট পেশ করতে নির্দেশ দিতে পারে। (b) কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ কোনাে কাজ বে-আইনীভাবে বা অনিয়মিতভাবে করলে, তা যথাযথভাবে করার জন্য সরকার নির্দেশ দিতে পারে। (৩) রাজ্য সরকার কর্তৃক কর্পোরেশনের পরিচালনার অধিগ্রহণ করা হল সরকারী নিয়ন্ত্রণের চূড়ান্ত রূপ। 7. কলিকাতা কর্পোরেশনের পৌর কমিশনারের প্রধান প্রধান কাজগুলি (Main functions) উল্লেখ কর।উত্তর। কর্পোরেশনের মুখ্য কার্য নির্বাহক হলেন পৌর কমিশনার (Munic
ipal Commissioner)। তাকে নিযুক্ত করেন রাজ্য সরকার। কর্পোরেশনের অফিসার ও কর্মচারীদের মধ্যে কমিশনার দায়িত্ব বণ্টন করেন। তার নিয়ন্ত্রণাধীনে অফিসার ও কর্মচারীরা কাজ করেন। রাজ্য সরকারকে দেয় করপােরেশনের বার্ষিক রিপাের্ট কমিশনার তৈরি করেন। এছাড়া কর্পোরেশনের যাবতীয় আসন ও কার্যবিরবণী তাকে তত্ত্বাবধান করতে হয়। বস্তুতঃ কমিশনারকে করপােরেশনের আইনের দ্বারা নির্দিষ্ট দায়িত্বসমূহ সম্পাদন করতে হয়। মেয়রের নির্দেশ অনুসারে তিনি তার দায়িত্ব পালন করেন। ৪. কলিকাতা কর্পোরেশনের মেয়রের কার্যগুলি (Functions) কি কি?উত্তর: স-পরিষদ মেয়রের সভা আহ্বান করেন মেয়র। তিনি এই সভায় সভাপতিত্ব করেন। মেয়রের নির্দেশক্রমে এই সভার আলােচ্যসূচী স্থির করা হয়। সপরিষদ মেয়রের অনুমােদন ও সম্মতিসহ মেয়র কর্পোরেশনের কাজকর্ম পরিচালনা করেন। তবে সপরিষদ মেয়র লিখিতভাবে ও শর্তসাপেক্ষে কোনাে বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মেয়রকে একক ক্ষমতা ও কর্তৃত্ব দিতে পারে। জরুরী পরিস্থিতিতে মেয়র যে-কোনাে বিষয়ে নিজে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারেন এবং তদনুসারে প্রয়ােজনমতাে ব্যবস্থাদি গ্রহণ করতে পারেন।

পশ্চিমবঙ্গে পঞ্চায়েতীরাজ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nineteen − sixteen =